Back

ⓘ প্রকৌশল




                                               

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্লানার্স

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্লানার্স বাংলাদেশের নগর ও গ্রামীণ/ অঞ্চল পরিকল্পনাবিদদের জাতীয় প্রতিষ্ঠান। ১৯৭৪ সালে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। বিআইপির বর্তমান সভাপতি অধ্যাপক ড. আকতার মাহমুদ এবং সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. আদিল মোহাম্মদ খান। বিআইপি জাতীয় স্বার্থে নগর ও গ্রামীণ/অঞ্চল পরিকল্পনা সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন পরামর্শ সরকাররের বিভিন্ন পর্যায়ে করে থাকে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ব ...

                                               

সুইফট ইঞ্জিনিয়ারিং

সুইফট ইঞ্জিনিয়ারিং একটি আমেরিকান মহাকাশযান ইঞ্জিনিয়ারিং প্রতিষ্ঠান। এটি মনুষ্যবিহীন আকাশযান, হেলিকপ্টার, সাবমেরিন, মহাকাশযান, মহাশূন্যযান, নভোযান, রোবোটিক এর নকশা এবং ম্যানুফ্যাকচারিং করে।

                                               

সুরক্ষা প্রকৌশল

সুরক্ষা প্রকৌশল একটি প্রকৌশল ক্ষেত্র যা নিশ্চিত করে প্রকৌশল পদ্ধতিগুলো যেনো গ্রহণযোগ্য স্তরের সুরক্ষা প্রদান করে। এটি বেশ ভালোভাবে শিল্প প্রকৌশল / সিস্টেম প্রকৌশল এবং উপসেট সিস্টেম সুরক্ষা প্রকৌশল এর সাথে সম্পর্কিত। সুরক্ষা ইঞ্জিনিয়ারিং নিশ্চিত করে যে একটি লাইফ ক্রিটিকাল- সিস্টেম প্রয়োজন অনুসারে চলতে পারে, এর উপাদানসমূহ নষ্ট হওয়া যাওয়া সত্ত্বেও।

                                               

ফলিত বিজ্ঞান

ফলিত বিজ্ঞান হলো বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি এবং জ্ঞানকে ব্যবহারিক লক্ষ্য অর্জনের জন্য ব্যবহার করা। এর মধ্যে প্রকৌশল এবং ঔষধশাস্ত্রের মতো বিস্তৃত শাখা রয়েছে। ফলিত বিজ্ঞান প্রায়শই তাত্ত্বিক বিজ্ঞানের সাথে বৈপরীত্য সৃষ্টি করে, যা বৈজ্ঞানিক তত্ত্ব এবং সুত্রসমুহকে এগিয়ে নিয়ে যায় যা প্রকৃতিকে নতুনভাবে ব্যাখ্যা করতে সাহায্য করে এবং নতুন আবিষ্কারের পূর্বাভাস দেয়। ফলিত বিজ্ঞান কৌলিতত্ত্বের মতো পরিসংখ্যান এবং সম্ভাবনা তত্ত্বের মতো আনুষ্ঠানিক বিজ্ঞানও প্রয়োগ করতে পারে। জেনেটিক এপিডেমিওলজি হল একটি প্রয়োগ বিজ্ঞান যা জৈবিক এবং পরিসংখ্যান উভয় পদ্ধতিই প্রয়োগ করে।

                                               

গাজী ওয়্যারস্ লিমিটেড

গাজী ওয়্যারস্ লিমিটেড বাংলাদেশ সরকারের মালিকানাধীন একটি সংস্থা যা তার উৎপাদন করে। এটি বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল কর্পোরেশনের একটি সহায়ক সংস্থা। গাজী ওয়্যারস্ লিমিটেডের চেয়ারম্যান হলেন বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান মোঃ রইস উদ্দিন। ডা. মোঃ গোলাম কবির গাজী ওয়্যারস্ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

                                               

এটলাস বাংলাদেশ লিমিটেড

এটলাস বাংলাদেশ লিমিটেড বাংলাদেশ সরকারের মালিকানাধীন একটি মোটরসাইকেল আমদানিকারক এবং উৎপাদনকারী সংস্থা। এটি বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল কর্পোরেশনের একটি সহযোগী সংস্থা।

                                               

জেনারেল ইলেকট্রিক ম্যানুফ্যাকচারিং কোং লিমিটেড

জেনারেল ইলেকট্রিক ম্যানুফ্যাকচারিং কোং লিমিটেড বাংলাদেশ সরকারের মালিকানাধীন একটি বৈদ্যুতিক যন্ত্রাংশ নির্মাতা সংস্থা যা বৈদ্যুতিক ট্রান্সফর্মার তৈরি করে। আবদুল জব্বার সংস্থাটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক। এটি বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল কর্পোরেশনের একটি সহায়ক সংস্থা।

                                               

রাজেন্দ্রনাথ সেন

রাজেন্দ্রনাথ এর পিতার নাম মধুসূদন সেন। সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজ থেকে এফ এ পাশ করেন ও ১৮৯৮ সালে প্রেসিডেন্সী কলেজ থেকে ফিজিক্স ও কেমিস্ট্রিতে প্ৰথম হয়ে এম.এ. পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন এবং কিছুদিন উত্তরপাড়া কলেজ ও ঢাকার জগন্নাথ কলেজে শিক্ষকতা করেন। ১৯০৭ সালে ঘোষ স্কলারশিপ নিয়ে বিলাত যান এবং লীডস বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমএসসি পাশ করেন তিনি।

                                               

দশাচিত্র

দশাচিত্র হলো ভৌত রসায়ন, প্রকৌশল, খনিজবিদ্যা এবং বস্তু বিজ্ঞানে ব্যবহৃত এমন এক ধরনের চার্ট যা বিভিন্ন অবস্থা দেখাতে সক্ষম যেখানে তাপবিদ্যুৎ সংক্রান্ত পৃথক দশা থাকে এবং ভারসাম্য বজায় রাখে।

                                               

সামুদ্রিক পানি গ্রিনহাউজ

একটি সামুদ্রিক পানি গ্রীনহাউস হচ্ছে একটি গ্রীনহাউস কাঠামো যা শস্যের বৃদ্ধি এবং শুষ্ক অঞ্চলে মিঠা পানির উৎপাদন সক্ষম করে যা পৃথিবীর স্থলভাগের প্রায় এক তৃতীয়াংশ গঠন করে।এটি বিশ্বব্যাপী পানির ঘাটতি, পিক জলের এবং লবণ-সংক্রামক মাটির কমানোর কাজ করে। সিস্টেমটি সমুদ্রের জল এবং সৌর শক্তি ব্যবহার করে। গ্রিনহাউসের অনুরূপ প্যাড এবং ফ্যান কাঠামো কিন্তু অতিরিক্ত বাষ্পীভবনকারী এবং ঘনীভূতকারী ব্যবহার করে। শীতল ও আর্দ্র পরিবেশ তৈরি করতে সামুদ্রিক পানি গ্রিনহাউসে পাম্প করা হয় যা নাতিশীতোষ্ণ ফসলের চাষের জন্যে অনুুকূূল পরিস্থিতি। সৌর বিশোধন নীতি দ্বারা ঘনীভূত অবস্থায় মিঠা পানি তৈরি করা হয় যা লবণ ও ভেজাল ...

                                               

ইঞ্জিনিয়ারিং ইকুয়েশন সল্ভার (সমীকরণ সমাধানকারী)

ইঞ্জিনিয়ারিং ইক্যুয়েশন সলভার একটি বাণিজ্যিক সফটওয়্যার প্যাকেজ যা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অ-রৈখিক সমীকরণ সমাধানের ব্যবহৃত হয়।এটি তাপ গতিবিদ্যা এবং তাপের আদান-প্রদান মূলক সমস্যার সমাধানের জন্য অনেক কার্যকারী বিশেষায়িত ফাংশন/পদ্ধতি এবং সমীকরণ প্রদান করে। এইসব কারণে এটি যন্ত্রকৌশল প্রকৌশলীদের জন্য দরকারি এবং সর্বাধিক ব্যবহৃত সফট্ওয়ারে পরিণত হয়েছে। ই.ই.এস. তাপগতিবিদ্যা সম্পর্কিত কিছু বৈশিষ্ট্য তথ্য আকারে জমা রাখে, যেগুলোর সাহায্যে কোডের ব্যবহারের মাধ্যমে হাত দিয়ে পুনরাবৃত্তি-মূলক সমস্যার সমাধান অপসারণ করে। ই.ই.এস. এর বিল্ট ইন ফাংশন ব্যবহারের মাধ্যমে পর্যাবৃত্তিমূলক সমস্যার সমাধান করে এবং সেই স ...

                                               

বিচ্ছিন্নকরণ বিভব

ইলেক্ট্রনিক্সে, বিচ্ছিন্নকরণ বিভব হল এমন ভোল্টেজ যেখানে কোন ব্যাটারি পুরোপুরি তার চার্জ হারায়, এর বেশি বিচার্জিত হলে ক্ষতি হতে পারে। সেল ফোনের মতো কিছু ইলেকট্রনিক ডিভাইস যখন কাট-অফ ভোল্টেজ পৌঁছে যায় তখন স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ হয়ে যায়।

                                               

বুদ্ধিমান পরিবহন ব্যবস্থা

বুদ্ধিমান পরিবহন ব্যবস্থা একটি উন্নত অ্যাপ্লিকেশন, যার লক্ষ্য পরিবহন এবং ট্র্যাফিক পরিচালনার বিভিন্ন শাখায় অভিনব সেবা সরবরাহ করা এবং ব্যবহারকারীদের আরও ভালভাবে অবহিত করার মাধ্যমে নিরাপদ, আরও সমন্বিত এবং পরিবহন নেটওয়ার্কের আরো স্মার্ট ব্যবহার নিশ্চিত করা। এই প্রযুক্তিগুলির মধ্যে অন্তর্ভুক্ত- দুর্ঘটনা ঘটলে জরুরি সেবার ডাক দেওয়া, ক্যামেরা ব্যবহার করে ট্রাফিক আইন ব চিহ্নের প্রয়োগ- যা পরিস্থিতির উপর ভিত্তি করে স্পিড লিমিট পরিবর্তন করে। যদিও আইটিএস সব রকমের পরিবহন সেবায় উল্লেখযোগ্য, তবে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দিকনির্দেশনা 2010/40 / ইইউ, জুলাই 7, 2010 তারিখে প্রণীত, আইটিএস কে এমন একটি সিস্টেম হি ...

প্রকৌশল
                                     

ⓘ প্রকৌশল

প্রকৌশল পেশাদারি ও সমাজমুখী ব্যবহারিক বিজ্ঞানের একটি বৃহৎ ক্ষেত্র, যেখানে গণিত ও প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের তাত্ত্বিক শাখাগুলিতে আলোচিত বিভিন্ন প্রাকৃতিক বল ও পদার্থের ধর্মাবলিকে শাসনকারী বৈজ্ঞানিক বিধি ও মূলনীতিগুলি অধীত হয়; এবং যুগের আর্থ-সামাজিক চাহিদা মেটাতে, বাস্তব বিশ্বের অভিজ্ঞতা, যুক্তি, কল্পনা ও সূক্ষ্ম অন্তর্দৃষ্টির সহায়তা নিয়ে এবং ত্রুটিহীনতা, দীর্ঘস্থায়িত্ব, দ্রুততা, সরলতা, দক্ষতা, অর্থসাশ্রয়, অপচয় হ্রাস, জানমালের নিরাপত্তা, ইত্যাদি বিষয়ে সর্বোচ্চ সন্তুষ্টিবিধান করে এই বিধি ও মূলনীতিগুলিকে সচেতনভাবে প্রয়োগ করে প্রকৃতিতে প্রাপ্ত বিভিন্ন সম্পদ ও শক্তিকে কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহার করে নতুন, উদ্ভাবনী ও সাধারণত জটিলতর কোনও প্রযুক্তি অথবা একাধিক প্রযুক্তির সমবায়ের নকশা প্রণয়ন, নির্মাণ, এগুলির নির্মাণকাজে অন্য অনেক শ্রমিক মানুষকে সংগঠিতকরণ, যথাযথ নির্দেশনা প্রদান, পরিচালনা ও তদারকিকরণ কিংবা শিল্পক্ষেত্রে অর্থনৈতিক পণ্যদ্রব্য হিসেবে এগুলির উৎপাদন, নির্মাণ-পরিবর্তী বা উৎপাদন-পরিবর্তী কালে নকশা সম্পর্কে পূর্ণ অবহিতি নিয়ে এগুলি চালনা ও ব্যবহার, রক্ষণাবেক্ষণ, বিশ্লেষণ, প্রদত্ত চালনার শর্তে এগুলির ভবিষ্যৎ আচরণ, কর্মদক্ষতা ও খরচ সম্পর্কে ভবিষ্যৎবাণী প্রদান, ইত্যাদি বিভিন্ন কর্মকাণ্ড সম্পাদন করা হয়, যার চূড়ান্ত লক্ষ্য হল প্রকৃতির সম্পদকে মানুষের ব্যবহারযোগ্য কোনও রূপে রূপান্তরিত করে কোনও ব্যবহারিক সমস্যার প্রযুক্তিগত সমাধান করে মানবজাতির উপকার ও কষ্টলাঘব করা।

যারা প্রকৌশল ক্ষেত্রের উপরোক্ত কর্মকাণ্ডগুলির সাথে জড়িত, তাদেরকে প্রকৌশলী বলে। প্রকৌশলীরা যা কিছু নকশা, সৃষ্টি ও নির্মাণ করেন, তাকে প্রযুক্তি বলে। যেমন পুরকৌশল ক্ষেত্রে সেতু, সড়ক, ভবন; তড়িৎ প্রকৌশল ক্ষেত্রে বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম, বৈদ্যুতিক যোগাযোগ ব্যবস্থা; কম্পিউটার প্রকৌশল ক্ষেত্রে কম্পিউটার ব্যবস্থা, কম্পিউটার নেটওয়ার্ক বা জালক; যন্ত্রকৌশল ক্ষেত্রে ইঞ্জিন, মোটরগাড়ি ও অন্যান্য যানবাহন, যন্ত্রসামগ্রী; রাসায়নিক প্রকৌশল ক্ষেত্রে রাসায়নিক পদার্থ, এগুলি প্রস্তুতির যন্ত্রপাতি; জৈব প্রকৌশল ক্ষেত্রে জৈব পদার্থ বা জীব, ইত্যাদি প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করা হয়। প্রকৌশলের উল্লিখিত প্রতিটি ক্ষেত্রেরই বহুসংখ্যক উপক্ষেত্র আছে, যেগুলির সম্মিলিত পরিধি অত্যন্ত ব্যাপক এবং আধুনিক সমাজ ও সভ্যতার প্রতিটি ক্ষেত্রে এগুলির অবদান পরিলক্ষিত ও অনুভূত হয়।

প্রকৌশল হল সেই সুসংগঠিত শক্তি যা প্রযুক্তিগত পরিবর্তনের মাধ্যমে সমাজ ও সভ্যতার ইতিহাস বদলে দেয়। মানব সভ্যতার ইতিহাস ও প্রকৌশলের ইতিহাস তাই অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত। বস্তুবাদী দৃষ্টিকোণ থেকে বিশ্বসভ্যতার যতটুকু প্রগতি সম্পন্ন হয়েছে, তার সবটুকুতেই প্রকৌশলবিদ্যার গভীর অবদান আছে।

প্রকৌশলবিদ্যায় কেবল তাত্ত্বিক বিশ্লেষণের খাতিরে বিশ্লেষণ করা হয় না কিংবা অস্তিত্বহীন কোনও কাল্পনিক, তাত্ত্বিক সমস্যার অসাধারণ প্রতিভাদীপ্ত সমাধান সন্ধান করা হয় না। প্রকৌশলবিদ্যার উদ্দেশ্য জ্ঞানবিজ্ঞানের নিরন্তর বিশ্বকোষীয় সংগ্রহ নয়, বরং সংগৃহীত তাত্ত্বিক জ্ঞানবিজ্ঞানের সম্ভাব্য উপকারী দিকগুলিকে বাস্তবে রূপ দেওয়া। প্রকৌশল ছাড়া বিজ্ঞানের টেকসই বাস্তব উপকারী প্রয়োগ সম্ভব নয়। আবার প্রকৌশল কেবল তাত্ত্বিক জ্ঞানবিজ্ঞান ও বাস্তব বিশ্বের মেলবন্ধনই ঘটায় না, এটি বিজ্ঞান, ইতিহাস, সমাজ, মানুষের কায়িক পরিশ্রম ও অর্থনীতির মধ্যকার যোগসূত্র হিসেবেও কাজ করে। প্রকৌশল চিন্তাভাবনাহীন কায়িক পরিশ্রম নয়, বরং কায়িক পরিশ্রমের বিজ্ঞানভিত্তিক সর্বোচ্চ কৌশলী ব্যবহার। প্রকৌশলবিদ্যা যুগের চাহিদা ও সমাজের চাহিদার ব্যাপারে সচেতন। প্রকৌশলবিদ্যা ছাড়া সমাজ ও সভ্যতার বস্তুগত অগ্রগতি প্রায় অচল হয়ে যাবে। প্রকৌশলবিদ্যা ছাড়া অর্থনৈতিক ব্যবস্থাগুলির দক্ষতা হ্রাস পাবে ও এগুলির প্রবৃদ্ধি স্থবির হয়ে পড়বে।

                                     

1. গণিত, বিজ্ঞান, প্রকৌশল ও প্রযুক্তির সম্পর্ক

গণিত হল পরিমাপ ও বিন্যাসের বিমূর্ত, বিশুদ্ধ অধ্যয়ন।

বিজ্ঞান হল প্রকৃতির বিভিন্ন পদার্থ ও শক্তির ধর্মসমূহ সম্পর্কে সত্যসমূহ এবং এগুলিকে নিয়ন্ত্রণকারী বিধি ও মূলনীতিসমূহের তাত্ত্বিক অধ্যয়ন। প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের আলোচ্য বিষয় মানুষের কর্মকাণ্ড ও প্রভাব গণনায় না ধরে প্রকৃতিতে স্বতঃস্ফূর্তভাবে লব্ধ সমস্ত পদার্থ, শক্তি, প্রক্রিয়া ও সংস্থান বা সিস্টেম।

প্রকৌশল হল গণিত ও তাত্ত্বিক বিজ্ঞানের বিধি ও মূলনীতিগুলির সুশৃঙ্খল প্রণালীবদ্ধ প্রয়োগ করে প্রযুক্তি নির্মাণের মাধ্যমে মানুষের আর্থ-সামাজিক চাহিদার প্রয়োজনে উদ্ভূত বিভিন্ন ব্যবহারিক সমস্যা সমাধান করা। প্রকৌশল তাই প্রকৃতির উপর মানুষের প্রভাব বিস্তারকারী এক বিশেষ ধরনের কর্মকাণ্ড।

প্রযুক্তি হল প্রকৌশলের সুবাদে লব্ধ বস্তু, যন্ত্র, সরঞ্জাম, প্রক্রিয়ার সমাহার যা বিভিন্ন ব্যবহারিক সমস্যার সমাধানে ব্যবহৃত হয়। প্রযুক্তি তাই প্রকৃতির বাইরে অবস্থিত সেই সমস্ত পদার্থ, জটিল বস্তু, প্রক্রিয়া ও সংস্থান বা সিস্টেমসমূহের সমগ্র, যা মানুষের উদ্দেশ্যমূলক ও প্রকৌশলমূলক কর্মকাণ্ডের ফসল।

                                     

2. প্রয়োগপদ্ধতি

সমস্যা সমাধান

একজন প্রকৌশলী একজন সাধারণ বিজ্ঞানীর মত যেকোনও আগ্রহজনক সমস্যা নিয়ে কাজ করেন না। তাকে এমন কোনও সমস্যার সমাধান করতে হয়, যে সমস্যা বাস্তব বিশ্বে কোনও ব্যবহারিক কারণে সৃষ্ট হয়েছে। প্রকৌশলীকে এমন সমাধান প্রদান করতে হয় যা অনেকগুলি পরস্পর-বিরোধী শর্তের মধ্যে সর্বোচ্চ সন্তুষ্টিবিধান করে। প্রকৌশলীর সমাধানটি যদি দক্ষ হয়, তাহলে সাধারণত সেটি ব্যয়বহুলও হয়। নিরাপত্তার কথা মাথায় রাখলে সমাধান আরও জটিল রূপ ধারণ করে। কর্মদক্ষতা বৃদ্ধি করলে হয়ত ওজন বেড়ে যায়। একটি প্রকৌশলীয় সমাধান তাই অনেকগুলি বিষয় বিবেচনা করে গৃহীত এক ধরনের সর্বোচ্চ সন্তুষ্টিবিধানমূলক সমাধান, যা হয়ত নির্দিষ্ট কোনও ভারসীমার মধ্যে সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য, কিছু নিরাপত্তামূলক শর্ত সন্তুষ্টকারী সরলতম এবং কোনও প্রদত্ত ব্য়য়সীমার মধ্যে সবচেয়ে কর্মদক্ষ।