ⓘ Free online encyclopedia. Did you know? page 87




                                               

কাতার–যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্ক

১৯৭৩ সাল মার্চ মাসে দোহায় মার্কিন দূতাবাস যাত্রা শুরু করে। এরপর থেকেই দুই দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষীয় সম্পর্ক গড়ে ওঠে। জুলাই, ১৯৭৪ সালে প্রথম মার্কিন রাষ্ট্রদূত আসেন। কাতার এবং যুক্তরাষ্ট্র একত্রে মধ্যপূর্ব অঞ্চলের কূটনৈতিক পদক্ষেপ নেয়, যেন পারস্ ...

                                               

কাতার–সংযুক্ত আরব আমিরাত সম্পর্ক

কাতার–সংযুক্ত আরব আমিরাত সম্পর্ক হল কাতার এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। দোহায় ইউএইর একটি দূতাবাস রয়েছে; ওদিকে এবং দুবাইয়ে রয়েছে কাতারের কনস্যুলেট আর আবু ধাবিতে রয়েছে মূল দূতাবাস। উভয় দেশেরই সামুদ্রিক সীমানা রয়েছে এব ...

                                               

কেনিয়া-কাতার সম্পর্ক

২০১৪ সালের এপ্রিল মাসে কেনিয়ার রাষ্ট্রপতি উহুরু কেনিয়াটা কাতারে সফর করেন। তিনি কাতারের আমির তামিম বিন হামাদ আল থানির সাথে সাক্ষাৎ করেন। তারা আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা, নিরাপত্তা এবং যুবসমাজের মৌলবাদ বিষয়ে আলোচনা করেন। তারা বহুবিধ চুক্তিস্বাক্ষর এবং ...

                                               

কাতার-ফ্রান্স সম্পর্ক

কাতার - ফ্রান্স সম্পর্ক হল ফ্রান্স এবং কাতারের মধ্যকার দ্বিপাক্ষীয় সম্পর্ক। ফ্রান্সে স্থাপিত প্রথম কাতারের দূতাবাসটি ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়, এবং প্রথম দ্বিপাক্ষীয় চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় ১৯৭৪ সালে।

                                               

বাংলাদেশ–কাতার সম্পর্ক

দোহায় বাংলাদেশের একটি দূতাবাস রয়েছে। বাংলাদেশ ও কাতার প্রতিরক্ষা সম্পর্ক বাড়াতে সম্মত হয়েছে। কাতার চ্যারিটির বাংলাদেশে স্কুল, এতিমখানা এবং প্রশিক্ষণ কেন্দ্র রয়েছে। ২০১৪ সালে দোহায় বাংলাদেশ-কাতার মহিলা সমিতি গঠন করা হয়েছিল। বাংলাদেশের পররাষ ...

                                               

ভারত–কাতার সম্পর্ক

ভারত- কাতার সম্পর্ক হল ভারত ও কাতার দেশ দুটির মধ্যে নিজেদের পারস্পরিক সম্পর্ক বা সমঝোতা।কাতাএর রাজধানী ও প্রধান শহর দোহা তে ভারতের একটি দূতা বাস রয়েছে ।একই ভাবে কাতাএর একটি দূতাবাস রয়েছে ভারত এর রাজধানী শহর দিল্লি বা নিউ দিল্লি তে।এই দূতাবাস দু ...

                                               

কাতার–মিশর সম্পর্ক

মিশরের আন্দোলনরত সংস্থাগুলোকে কাতার অর্থনৈতিকভাবে সাহায্য করছে - এমন অভিযোগে ১৯৯৭ সালে মিশ্র কাতারে অনুষ্ঠেয় এমইএমএ সম্মেলন বয়কট করে। তারা কাতারের গণমাধ্যমকে মিশরবিরোধী কর্মসূচী জিয়ে রাখার অভিযোগও করে। পরবর্তীতে ঐ বছর সৌদি আরব বিরাজমান বিবাদের ...

                                               

বাংলাদেশ-কুয়েত সম্পর্ক

কুয়েতের আমির কুয়েত সাবাহ আল-সালিম আল-সাবাহ ১৯৭৪ সালে বাংলাদেশ সফর করেছিলেন। কুয়েতে বাংলাদেশের আবাসিক দূতাবাস রয়েছে। ১৯৯১ সালে ইরাক কুয়েত আক্রমণ করার পরে, সৌদি আরবকে রক্ষার জন্য বাংলাদেশ জাতিসংঘের নেতৃত্বে পরিচালিত অপারেশন ডেজার্ট শিল্ডের জন্ ...

                                               

কেনিয়া–চীন সম্পর্ক

দুই দেশের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের সূত্রপাত ঘটে ১৪ ডিসেম্বর, ১৯৬৩ সালে, কেনিয়ার স্বাধীনতা লাভের দুইদিন পর। চীনই ছিল নাইরোবিতে দূতাবাস স্থাপন করা চতুর্থ রাষ্ট্র। গত যুগ ধরে দুই দেশের মধ্যে সামরিক বিনিময় বেড়েছে। জেনারেল লিউ জিংসং, লানঝউ সাম ...

                                               

কেনিয়া–বাংলাদেশ সম্পর্ক

খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে পড়ে থাকা জমি ইজারা নেওয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অন্যতম কাঙ্ক্ষিত গন্তব্য কেনিয়া। কেনিয়াও পড়ে থাকা বৃহৎ অঞ্চলের জমির ব্যাপারে বাংলাদেশের ইজারা নেবার ব্যাপারে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। এ জমিতে ধান ও তুলা উৎপাদিত হবে।

                                               

গাম্বিয়া–বাংলাদেশ সম্পর্ক

খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের লক্ষ্যে গাম্বিয়া বাংলাদেশের কাছে কৃষিখাতে সহযোগিতা কামনা করেছে। স্বাস্থ্যখাতে সহযোগিতার জন্যেও গাম্বিয়া বাংলাদেশের কাছে সহযোগিতা চেয়েছে। বাংলাদেশ থেকে দক্ষ চিকিৎসক, নার্স নেওয়ার ব্যাপারেও তারা আগ্রহী। বাংলাদেশে ...

                                               

ঘানা–বাংলাদেশ সম্পর্ক

ঘানা–বাংলাদেশ সম্পর্ক হল ঘানা এবং বাংলাদেশ রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। ঘানা এবং বাংলাদেশ পরস্পরের সাথে উষ্ণ কূটনৈতিক সম্পর্ক বজায় রেখে চলছে এবং সম্পর্ক আরো দৃঢ় করার ব্যাপারেও আগ্রহী।

                                               

কিরিবাস–চীন সম্পর্ক

কিরিবাস - চীন সম্পর্ক হল কিরিবাস এবং গণপ্রজাতন্ত্রী চীনের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। কিরিবাস সরকার প্রজাতন্ত্রী চীনকে স্বীকৃতি দিয়েছে, এবং ওয়ান চায়না পলিসি অনুযায়ী বেইজিংয়ের সাথে বর্তমানে কিরিবাসের আনুষ্ঠানিক কোনো সম্পর্ক নেই। কারণ এ নীতি ...

                                               

চীন–জাম্বিয়া সম্পর্ক

১৯৯৮ সালে চায়না নন-ফেরাস মেটাল কর্পোরেশন সিএনএমসি ২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে জাম্বিয়ার চাম্বিসি তামার খনির ৮৫ শতাংশ ক্রয় করে। তারা খনির পুনর্গঠনের উদ্দেশ্যে আরো ১৩০ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করে। ২০০৫ সালের শেষের থেকে পরের দশ বছরের মধ্যে প্রায় ১৬০ট ...

                                               

চীন–নামিবিয়া সম্পর্ক

চীন–নামিবিয়া সম্পর্ক হল গণপ্রজাতন্ত্রী চীন এবং নামিবিয়া রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। নামিবিয়ার স্বাধীনতা পরদিনই সরকারিভাবে এ দুই রাষ্ট্রের মধ্যকার সম্পর্ক স্থাপিত হয়, তবে ১৯৬০-এর দিকে নামিবিয়ার স্বাধীনতা আন্দোলনের সময়েও চীনের ...

                                               

চীন–পোল্যান্ড সম্পর্ক

চীন–পোল্যান্ড সম্পর্ক হল গণপ্রজাতন্ত্রী চীন এবং পোল্যান্ড রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। ১৯৪৯ সালের ৫ই অক্টোবর এ দুই দেশের মধ্যকার সম্পর্ক আনুষ্ঠানিক সূত্রপাত ঘটে। বেইজিংয়ে পোলিশ দূতাবাস অবস্থিত।

                                               

চীন–বতসোয়ানা সম্পর্ক

চীন–বতসোয়ানা সম্পর্ক হল চীন এবং বতসোয়ানা রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। ১৯৭৫ সালের ৬ই জানুয়ারি এ দুই দেশের মধ্যকার সম্পর্ক প্রতিষ্ঠিত হয়। ২০১০ সালে দুই দেশের সম্পর্কের ৩৫তম বার্ষিকীতে বতসোয়ানায় নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত লিউ হুয় ...

                                               

চীন–বাংলাদেশ সম্পর্ক

চীন - বাংলাদেশ সম্পর্ক হল চীন ও বাংলাদেশ রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক। বাংলাদেশ - চীন সম্পর্ক প্রাচীন ও প্রায় তিন হাজার বৎসরের পুরোনো। বাঙালি সভ্যতা ও চীনা সভ্যতার মাঝে খ্রিষ্টের জন্মেরও হাজার বৎসর আগে থেকে যোগাযোগ আছে। প্রাচীনকাল ...

                                               

চীন–ভানুয়াটু সম্পর্ক

চীন–ভানুয়াটু সম্পর্ক হল গণপ্রজাতন্ত্রী চীন এবং প্রজাতন্ত্রী ভানুয়াটু রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। ১৯৮২ সালের ২৬শে মার্চ দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপিত হয়। ১৯৮৯ সালে ভানুয়াটুতে চীন দূতাবাস স্থাপন করে, আর ভানুয়াটু চীনে ...

                                               

চীন–পবিত্র আসন সম্পর্ক

চীন–ভ্যাটিকান সিটি সম্পর্ক বা চীন–পবিত্র আসন সম্পর্ক হল গণপ্রজাতন্ত্রী চীন এবং ভ্যাটিকান সিটির মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। ১৯৫১ সাল থেকে এ দুই দেশের মধ্যে কোনো আনুষ্ঠানিক সম্পর্ক নেই।

                                               

চীন–মাইক্রোনেশিয়া যুক্তরাজ্য সম্পর্ক

চীন–মাইক্রোনেশিয়া যুক্তরাজ্য সম্পর্ক হল গণপ্রজাতন্ত্রী চীন এবং মাইক্রোনেশিয়া যুক্তরাজ্য রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। ১১ সেপ্টেম্বর, ১৯৮৯ সালে এ দুই দেশের মধ্যকার কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপিত হয়। চীনা সরকার ১৯৯০ সালে মাইক্রোনেশিয়ার ...

                                               

চীন–লাইবেরিয়া সম্পর্ক

গণপ্রজাতন্ত্রী চীন–লাইবেরিয়া সম্পর্ক হল গণপ্রজাতন্ত্রী চীন এবং লাইবেরিয়া রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। ১৯৭৭ সালে এ দুই রাষ্ট্রের মধ্যকার সম্পর্ক আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়, তবে নানাবিধ সমস্যার ফলে এ সম্পর্ক ভেঙেও যায় যা আবার প ...

                                               

চীন–সাইপ্রাস সম্পর্ক

চীন–সাইপ্রাস সম্পর্ক হল চীন এবং সাইপ্রাস রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। নিকোসিয়ায় অবস্থিত দূতাবাসের মাধ্যমে সাইপ্রাসে চীন নিজেদের প্রতিনিধিত্ব করছে। আর বেইজিংয়ে অবস্থিত দূতাবাসের মাধ্যমে চীনে সাইপ্রাস নিজেদের প্রতিনিধিত্ব করছে। দু ...

                                               

চীন–সামোয়া সম্পর্ক

চীন–সামোয়া সম্পর্ক হল গণপ্রজাতন্ত্রী চীন এবং সামোয়া রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। এ দুই দেশের মধ্যকার সম্পর্ক সর্বদাই উষ্ণ; চীন সামোয়াকে প্রায়শই অর্থনৈতিক সাহায্য দিয়ে থাকে। সামোয়ায় কার্যরত বর্তমান সামোয়ার রাষ্ট্রদূত হলে মা ...

                                               

চীন–সুইজারল্যান্ড সম্পর্ক

১৯৫০ সালের ১৭ই জানুয়ারিতে সুইজারল্যান্ড এবং গণপ্রজাতন্ত্রী চীনের ১ অক্টোবর ১৯৪৯ সালে ঘোষিত মধ্যকার কূটনৈতিক সম্পর্ক যাত্রা শুরু করে। চীনের সাথে সুইজারল্যান্ডের অর্থনৈতিক সম্পর্ক ১৮ শতকের শেষদিকে স্থাপিত হয়। ঔপনিবেশিক শক্তি চীনে ছিল এবং সুইস ব্য ...

                                               

চেক প্রজাতন্ত্র–চীন সম্পর্ক

চেক প্রজাতন্ত্র - চীন সম্পর্ক বা চীনা - চেক সম্পর্ক হল চেক প্রজাতন্ত্র এবং গণপ্রজাতন্ত্রী চীনের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। আনুষ্ঠানিকভাবে ১৯৪৯ সালের ৬ই অক্টোবর চেকোস্লোভাকিয়া এবং চীনের মধ্যে এ সম্পর্ক প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৯৩ সালে চেক প্রজাতন্ত্র ...

                                               

জর্ডান-বাংলাদেশ সম্পর্ক

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কূটনীতিক হেনরি কিসিঞ্জার ১৯৭১ সালে জর্দানের রাজা হুসেন বিন তালালকে চিঠি পাঠিয়েছিলেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকে উত্সাহিত করেছিলেন । রাষ্ট্রপতি নিকসন জর্দানকে পাকিস্তানে সামরিক সরবরাহ প্রেরণে উত্সাহিত করেছিলেন। নিক্ ...

                                               

জাপান-বাংলাদেশ সম্পর্ক

বাংলাদেশ জাপান সম্পর্ক হল বাংলাদেশ জাপান দ্বিপক্ষীয় কূটনৈতিক সম্পর্ক। ১৯৭২ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি থেকে স্বাধীন বাংলাদেশের সাথে সাথে জাপানের কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপিত হলেও বাঙালিদের সাথে জাপানিজদের সম্পর্ক শতাব্দী প্রাচীন। জাপানকে ঐতিহাসিক ভাবে বাঙা ...

                                               

ভারত–জাপান সম্পর্ক

ভারত-জাপানের সম্পর্ক ঐতিহ্যগতভাবে সুদৃঢ়। ভারত ও জাপানের জনগণ মূলত বৌদ্ধধর্মের ফলস্বরূপ সাংস্কৃতিক আদান-প্রদানের কাজ করেছে, যা চীন ও কোরিয়া হয়ে ভারত থেকে পরোক্ষভাবে জাপানে ছড়িয়ে পড়ে। ভারত ও জাপানের জনগণ বৌদ্ধ ধর্মের ঐতিহ্য সহ সাধারণ সাংস্কৃত ...

                                               

জার্মানি-বাংলাদেশ সম্পর্ক

জার্মানি-বাংলাদেশ সম্পর্ক বলতে বাংলাদেশ এবং জার্মানির মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে বুঝানো হয়। জার্মানির দূতাবাস ঢাকায়, এবং বাংলাদেশের দূতাবাস বার্লিনে অবস্থিত।

                                               

জার্মানি-ব্রুনাই সম্পর্ক

জার্মানি-ব্রুনাই সম্পর্ক বলতে জার্মানি এবং ব্রুনাইয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক বৈদেশিক সম্পর্ককে বোঝানো হয়। ব্রুনাইয়ের দূতাবাস বার্লিনে, এবং জার্মানির দূতাবাস বন্দর সেরি বেগাওয়ানে অবস্থিত।

                                               

ডেনমার্ক–ফিলিপাইন সম্পর্ক

ডেনমার্ক–ফিলিপাইন সম্পর্ক হল ডেনমার্ক এবং ফিলিপাইন রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। ম্যানিলাতে ডেনমার্কের একটি দূতাবাস রয়েছে, এবং নরওয়ের অসলোতে অবস্থিত দূতাবাসের মাধ্যমে ফিলিপাইন ডেনমার্কে নিজেদের প্রতিনিধিত্ব করে। কোপেনহেগেনে ফিলিপা ...

                                               

ডেনমার্ক-বাংলাদেশ সম্পর্ক

ডেনমার্ক ও বাংলাদেশ রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বৈদেশিক সম্পর্ক রয়েছে। বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা শহরে ডেনমার্ক সরকার একটি দূতাবাস স্থাপন করে। একই সাথে বাংলাদেশও ডেনমার্কে রাষ্ট্রদূত প্রেরণ করেছে। ডেনমার্কের স্টকহোমে বাংলাদেশের দূতাবাস অবস্থিত।

                                               

কানাডা–তাইওয়ান সম্পর্ক

কানাডা–তাইওয়ান সম্পর্ক হল কানাডা এবং প্রজাতন্ত্রী চীন বা তাইওয়ান রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। ১৯৪২ সালে এ দুই দেশের মধ্যকার সম্পর্ক স্থাপিত হয়। কানাডা এবং তাইওয়ানের মধ্যে বেশকিছু সক্রিয় দ্বিপাক্ষিক চুক্তি কার্যরত আছে।

                                               

তাইওয়ান–প্যারাগুয়ে সম্পর্ক

তাইওয়ান–প্যারাগুয়ে সম্পর্ক হল তাইওয়ান এবং প্যারাগুয়ে রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। ৮ জুলাই, ১৯৫৭ সালে দুই দেশের সরকার পারস্পরিক কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করেন। প্যারাগুয়ে পৃথিবীর ২২টি দেশের একটি এবং দক্ষিণ আমেরিকার একমাত্র দেশ, য ...

                                               

তাইওয়ান–বাংলাদেশ সম্পর্ক

তাইওয়ান–বাংলাদেশ সম্পর্ক হল বাংলাদেশ-চীন সম্পর্ক বা তাইওয়ানের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশ এবং তাইওয়ানের মধ্যে কোনো প্রকার সম্পর্ক নেই।

                                               

তাইওয়ান–বুর্কিনা ফাসো সম্পর্ক

তাইওয়ান–বুর্কিনা ফাসো সম্পর্ক হল প্রজাতন্ত্রী চীন বা তাইওয়ান এবং বুর্কিনা ফাসো রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। প্রজাতন্ত্রী চীনকে ২১টি জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্র স্বীকৃতি দেয়, হোলি সী বাদে, যার একটি হল বুর্কিনা ফাসো। গাম্বিয়া এবং তাই ...

                                               

তাইওয়ান–ব্রাজিল সম্পর্ক

তাইওয়ান–ব্রাজিল সম্পর্ক হল প্রজাতন্ত্রী চীন বা তাইওয়ান এবং সংযুক্ত প্রজাতন্ত্রী ব্রাজিল রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। তাইওয়ান ও ব্রাজিলের মধ্যে কোনো প্রকার আনুষ্ঠানিক কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই, কারণ ব্রাজিল গণপ্রজাতন্ত্রী চীনকে স্বীকৃ ...

                                               

তাইওয়ান–মেক্সিকো সম্পর্ক

তাইওয়ান–মেক্সিকো সম্পর্ক হল প্রজাতন্ত্রী চীন বা তাইওয়ান রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। আনুষ্ঠানিকভাবে এ দুই রাষ্ট্রের মধ্যে কোনো সম্পর্ক নেই।

                                               

তাজিকিস্তান-তুরস্ক সম্পর্ক

তাজিকিস্তান-তুরস্ক সম্পর্ক, তাজিকিস্তান এবং তুরস্ক এর মাঝে বিদ্যমান দিপাক্ষিক সম্পর্ককে নির্দেশ করে। দুই দেশের মাঝে অত্যন্ত আন্তরিক এবং বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বিদ্যমান। ১৯৯১ সাল থেকে এই দুই দেশের মধ্যে প্রায় ৩০ এর অধিক চুক্তি এবং সমঝোতা স্মারক সা ...

                                               

তুরস্ক–বাংলাদেশ সম্পর্ক

তুরস্ক–বাংলাদেশ সম্পর্ক বাংলাদেশ এবং তুরস্কের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে নির্দেশ করে। উভয় দেশই বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা, জাতিসংঘ এবং নিরপেক্ষ আন্দোলনের অংশ। উভয় দেশই গণতান্ত্রিক যারা পারিস্পারিক দৃঢ় সম্পর্কের বন্ধনে আবদ্ধ।

                                               

ইসরায়েল–নাইজেরিয়া সম্পর্ক

ইসরায়েল–নাইজেরিয়া সম্পর্ক হল ইসরায়েল ও নাইজেরিয়ার মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের মধ্যেন রয়েছে কূটনৈতিক, সাংস্কৃতিক এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক। ইসরায়েলে নিযুক্ত নাইজেরিয় রাষ্ট্রদূত হলেন ডেভিড ওলাদিপো ওবাসা।

                                               

নাইজেরিয়া–ফিলিপাইন সম্পর্ক

নাইজেরিয়া–ফিলিপাইন সম্পর্ক হল নাইজেরিয়া এবং ফিলিপাইনের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। এ দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক স্থাপিত হয় ১৯৬২ সালের আগস্ট মাসে। ম্যানিলাতে নাইজেরিয়ার এবং আবুজায় ফিলিপাইনের দূতাবাস রয়েছে।

                                               

নাইজেরিয়া–বাংলাদেশ সম্পর্ক

নাইজেরিয়া–বাংলাদেশ সম্পর্ক হল নাইজেরিয়া এবং বাংলাদেশ রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। বাংলাদেশ ও নাইজেরিয়া উভয়েই উন্নয়নশীল ৮ দেশ, অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশন প্রভৃতি সংগঠনের সদস্য।

                                               

নামিবিয়া–বাংলাদেশ সম্পর্ক

নামিবিয়া–বাংলাদেশ সম্পর্ক হল নামিবিয়া এবং বাংলাদেশ রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। দুই দেশই পারস্পরিক সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রেখে চলেছে, যা আরো প্রসারের লক্ষ্যে দুই দেশই কাজ করে চলেছে।

                                               

নেপাল-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্ক

নেপাল – মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক বলতে নেপাল এবং আমেরিকার মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে বোঝায়। ২০১২ সালের ইউএস গ্লোবাল লিডারশিপের একটি রিপোর্ট অনুযায়ী, ৪১% নেপালি মানুষ মার্কিন নেতৃত্বকে অনুমোদন দিয়েছে, যার সাথে ১২% অস্বীকৃতি এবং ৪৭% অনিশ ...

                                               

নেপাল–বাংলাদেশ সম্পর্ক

যদিও নেপাল ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে একটি নিরপেক্ষ অবস্থান গ্রহণ করেছিলো, তবুও যুদ্ধশেষে ১৬ই জানুয়ারি ১৯৭২ তারিখে বাংলাদেশকে স্বাধীন দেশ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছিলো। এর ফলশ্রুতিতে পাকিস্তান সরকার নেপালের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করে দেয়। নে ...

                                               

পর্তুগাল–বাংলাদেশ সম্পর্ক

পর্তুগিজরা সর্বপ্রথম বাংলাদেশে আসে ষষ্ঠাদশ শতকে। বাংলায় তারা এসেছিলো ব্যাবসা করার জন্য। তারা তখন অনেক বাণিজ্য-কুঠি বানিয়েছিলো। ব্যাবসায়ী কার্যক্রমের জন্য তারা চট্টগ্রামের বঙ্গোপসাগরের বন্দর ব্যবহার করত। সেই সময় তারা চট্টগ্রামের ওপর নিজেদের নি ...

                                               

ভারত–পাপুয়া নিউ গিনি সম্পর্ক

ভারত–পাপুয়া নিউ গিনি সম্পর্ক ভারত এবং পাপুয়া নিউ গিনির মধ্যে বৈদেশিক সম্পর্ককে বোঝায়। নতুন দিল্লিতে পাপুয়া নিউ গিনির একটি দূতাবাস রয়েছে, ভারত পোর্ট মোরসবিতে একটি দূতাবাস পরিচালনা করে। এই উভয় রাষ্ট্রের মধ্যে সম্পর্ক খুব সৌহার্দ্যপূর্ণ ও ঘনিষ ...

                                               

আয়ারল্যান্ড–ফিলিপাইন সম্পর্ক

আয়ারল্যান্ড–ফিলিপাইন সম্পর্ক হল আয়ারল্যান্ড এবং ফিলিপাইন রাষ্ট্রদ্বয়ের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, ধর্মীয় এবং সাংস্কৃতিক সম্পর্ক। কুয়ালালামপুরে অবস্থিত দূতাবাসের মাধ্যমে আয়ারল্যান্ড নিজেদেরকে ফিলিপাইনে, আর ডাবলিনে অবস্থিত দূতাব ...