ⓘ Free online encyclopedia. Did you know? page 27




                                               

আশরাফ হুতাক

শাহ আশরাফ হুতাক, ছিলেন আবদুল আজিজ হুতাকের পুত্র এবং চতুর্থ হুতাক শাসক। সাফাভি সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের সময় তিনি মাহমুদ হুতাকের সেনাপ্রধান ছিলেন। তিনি গুলনাবাদের যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন। ১৭২৫ খ্রিষ্টাব্দে মাহমুদ হুতাক মারা যাওয়াপর তিনি ক্ ...

                                               

আসলাম খান খট্টক

মুহাম্মদ আসলাম খান খট্টক ছিলেন একজন পাকিস্তানি রাজনীতিবিদ এবং কূটনীতিক যিনি উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশের (বর্তমানে খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশের ১৯৭৩ থেকে ১৯৭৪ সাল পর্যন্ত গভর্নর ছিলেন।

                                               

ইনায়েতউল্লাহ খান

ইনায়েতউল্লাহ খান সেরাজ ১৯২৯ সালের জানুয়ারী মাসে তিন দিনের জন্য আফগানিস্তানের বাদশাহ ছিলেন। তিনি প্রাক্তন আফগান আমীর হাবিবউল্লাহ খানের পুত্র ছিলেন। হাবিবউল্লাহ কালাকানির সিংহাসন দখলের ফলে তার সংক্ষিপ্ত রাজত্বকাল শেষ হয়। ১৯২৯ খ্রিষ্টাব্দের ১৪ জা ...

                                               

এম আর কায়ানী

মুহাম্মদ রোস্তম কায়ানী বিচারপতি এম.আর. কায়ানী নামেই বেশি পরিচিত ছিলেন। পাকিস্তানের অন্যমত আইনজ্ঞ, প্রধান বিচারপতি । জেনারেল আইয়ূব খানের স্বৈরাচারতন্ত্রের বিরুদ্ধে সাহসী অবস্থান নেয়ার জন্য বিচারপতি কায়ানী স্মরণীয় হয়ে আছেন।

                                               

ওবায়দুল্লাহ আখন্দ

মোল্লা ওবায়দুল্লাহ, আখন্দ আফগানিস্তানের তালিবান সরকারের অধীনে প্রতিরক্ষামন্ত্রী ছিলেন এবং পরবর্তীতে নতুন আফগান সরকার এবং মার্কিন- নেতৃত্বাধীন ন্যাটো বাহিনীর বিরুদ্ধে তালেবান বিদ্রোহের সময় একজন বিদ্রোহী কমান্ডার হয়েছিলেন। ২০০৭ সালে তিনি পাকিস্ত ...

                                               

ওয়াজির আকবর খান

ওয়াজির আকবর খান, জন্মনাম মুহাম্মদ আকবর খান ছিলেন আফগান রাজপুত্র, সেনাপতি ও আমির। ১৮৪২ খ্রিষ্টাব্দে তিনি আমির হন। এরপর মৃত্যুর আগপর্যন্ত তিন বছর তিনি আমির ছিলেন। ১৮৩৭ খ্রিষ্টাব্দে জামরুদের যুদ্ধে আফগানিস্তানের দ্বিতীয় রাজধানী পেশাওয়ার পুনরুদ্ধা ...

                                               

জাহাঙ্গীর খান (ক্রিকেটার)

ড. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর খান তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের জলন্ধরে জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা ভারতীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। পরবর্তীতে ভারত বিভাজনেপর পাকিস্তানের ক্রিকেট প্রশাসকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন। ভারত ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯ ...

                                               

খুশল খান খাট্টাক

খুশল খান খাট্টাক, Khushāl Bābā ছিল একজন পশতুন কবি, যোদ্ধা এবং পণ্ডিত, এবং খাট্টাক পশতুন আদিবাসীর প্রধান। খাট্টাক সমস্ত পশতুনের ইউনিয়ন পরিচালনা করতেন এবং তিনি তার কবিতার মাধ্যমে পশতুন জাতীয়তাবাদে মুঘল সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করতে উৎসাহিত কর ...

                                               

গোলাম সারওয়ার নাসের

গোলাম সারওয়ার নাসির ছিলেন নাসের গোত্রের শেষ খান শাসক এবং কুন্দুজে স্পিনজার কটন কোম্পানীর সভাপতি, যা যুদ্ধ পূর্ববর্তী আফগানিস্তানের বৃহত্তম কোম্পানীগুলোর অন্যতম ছিল।

                                               

মুহাম্মদ জহির শাহ

মুহাম্মদ জহির শাহ ছিলেন আফগানিস্তানের শেষ বাদশাহ। ১৯৩৩ থেকে ১৯৭৩ খ্রিষ্টাব্দে একটি বিদ্রোহে ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার আগ পর্যন্ত চার দশক তিনি শাসন করেছেন। নির্বাসন থেকে ফিরে আসাপর ২০০২ খ্রিষ্টাব্দে তাকে জাতির পিতা উপাধি প্রদান করা হয়। মৃত্যুর আগ পর্যন্ ...

                                               

জামান শাহ দুররানি

জামান শাহ দুররানি, ছিলেন দুররানি শাসক। ১৭৯৩ থেকে ১৮০০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত তিনি শাসন করেছেন। তিনি ছিলেন আহমদ শাহ দুররানির নাতি এবং তিমুর শাহ দুররানির পঞ্চম পুত্র।

                                               

তিমুর শাহ দুররানি

তিমুর শাহ দুররানি ছিলেন দুররানি সাম্রাজ্যের দ্বিতীয় শাসক। ১৭৭২ খ্রিষ্টাব্দের ১৬ অক্টোবর থেকে ১৭৯৩ খ্রিষ্টাব্দে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি শাসক ছিলেন। তিনি ছিলেন আহমদ শাহ দুররানির জ্যেষ্ঠ পুত্র।

                                               

তুরবাজ খান

তুরবাজ খান জেনারেল طره بازخان, একজন উল্লেখযোগ্য আফগান জাতীয় সেনা জেনারেল ছিলেন। তিনি কাবুলের একটি পশতুন পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি কাবুলের একটি সামরিক স্কুলে পড়াশোনা করেছিলেন। তিনি ১৯২৯ সালে সরদার মোহাম্মদ হাশিম খান মোহাম্মদ জহির শাহের চা ...

                                               

দাদুল্লাহ (পাকিস্তানি তালিবান)

আফগান তালেবান নেতা মোল্লা দাদুল্লাহর সাথে বিভ্রান্ত হওয়ার দরকার নেই। জামাল সাইদ ছদ্মনাম মোল্লা দাদুল্লাহ দিয়েই তিনি অধিক পরিচিত। এবং মওলানা মোহাম্মদ জামাল, পাকিস্তানি তালেবানদের সিনিয়র সদস্য ছিলেন। তিনি পাকিস্তানের উত্তর বাজৌর এজেন্সিতে স্বঘোষ ...

                                               

দোস্ত মুহাম্মদ খান (আফগানিস্তানের আমির)

দোস্ত মুহাম্মদ খান ছিলেন আফগানিস্তানের বারাকজাই রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা এবং আফগানিস্তানের আমির। দুররানি রাজবংশের পতনেপর তিনি আফগানিস্তানের আমির হন। ১৮২৬ থেকে ১৮৩৯ এবং ১৮৪৫ থেকে ১৮৬৩ এই দুই মেয়াদে তিনি আমিরের দায়িত্বপালন করেছেন। তিনি জাতিগতভাবে একজ ...

                                               

নাসরুল্লাহ খান (আফগানিস্তান)

নাসরুল্লাহ খান ছিলেন আফগানিস্তানের আমির। ১৯১৯ খ্রিষ্টাব্দের ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত তিনি আমিরের পদে ছিলেন। তিনি ছিলেন আমির আবদুর রহমান খানের দ্বিতীয় পুত্র।

                                               

নিজামুদ্দিন শামজাই

মুফতি নিজামুদ্দিন শামজাই ছিলেন একজন তালেবানপন্থী পাকিস্তানি সুন্নি ইসলামী পণ্ডিত এবং জামিয়া উলুমুল ইসলামিয়ার শায়খুল হাদীস। তাকে পাকিস্তানের একজন গুরুত্বপূর্ণ দেওবন্দি ব্যক্তিত্ব হিসেবে বিবেচনা করা হত। তিনি তালেবান এবং আল-কায়েদা উভয় দলের খুব ...

                                               

নূর মুহাম্মদ তারাকি

নূর মুহাম্মদ তারাকি ছিলেন একজন আফগান রাজনীতিবিদ। কাবুল বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা শেষ করাপর তিনি সাংবাদিক হিসেবে কাজ শুরু করেন। পরবর্তীতে পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টি অব আফগানিস্তান গঠনের সময় তিনি অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন। দলের প্রথম কংগ্রেসে তি ...

                                               

বাবরাক কারমাল

বাবরাক কারমাল কামারি এলাকায় জন্মগ্রহণকারী আফগানিস্তানের বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও স্নায়ুযুদ্ধকালীন নেতা ছিলেন। ১৯৭৯ থেকে ১৯৮৬ মেয়াদে সোভিয়েত মদদপুষ্ট আফগানিস্তানের রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেন কাবুল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র বারবাক কারমাল। পি ...

                                               

বিবি মুবারিকা ইউসুফজাই

বিবি মুবারিকা ইউসুফজাই হলেন একজন মুঘল সম্রাজ্ঞী, যিনি ভারতবর্ষে মুঘল সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা বাবরের স্ত্রী ছিলেন। তার নাম তার সৎমেয়ে গুলবদন বেগম কর্তৃক রচিত হুমায়ুন নামা য় বারংবার বর্ণিত হয়েছে। গুলবদন বেগম তাকে আফগানি আগাচা বলে বইটিতে অভিহিত ...

                                               

মালিক মেহেরুন নিসা আফ্রিদি

মালিক মেহেরুন নিসা আফ্রিদি ছিলেন একজন পাকিস্তানি আইনজীবী ও রাজনীতিবিদ। তিনি দুবার সংসদ সদস্য ছিলেন। তিনি ১৯৮৮ থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত এবং ২০০৮ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত সংরক্ষিত নারী আসনে নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি ১৯৬৮ সালের ২৪ শে এপ্রিল পাকিস্তান পিপল ...

                                               

মাহমুদ শাহ দুররানি

মাহমুদ শাহ দুররানি ছিলেন দুররানি শাসক। ১৮০১ থেকে ১৮০৩ খ্রিষ্টাব্দ এবং ১৮০৯ থেকে ১৮১৮ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত তিনি শাসন করেছেন। তিনি তিমুর শাহ দুররানির পুত্র ও আহমদ শাহ দুররানির নাতি ছিলেন। মাহমুদ শাহ জাতিগতদিক থেকে পশতুনদের দুররানি উপগোত্র পুপালজাইয় ...

                                               

মাহমুদ হুতাক

শাহ মাহমুদ হুতাক, ছিলেন আফগানিস্তানের হুতাক রাজবংশের শাসক। পতনশীল সাফাভি রাজবংশকে তিনি স্বল্প সময়ের জন্য উৎখাত করতে সক্ষম হন এবং ১৭২২ থেকে ১৭২৫ খ্রিষ্টাব্দে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি পারস্যের বাদশাহ ছিলেন। মাহমুদ হুতাক ছিলেন মীরওয়াইস হুতাকের জ্যে ...

                                               

মীরওয়াইস হুতাক

মীরওয়াইস খান হুতাক ছিলেন কান্দাহারের একজন প্রভাবশালী পশতুন গিলজি উপজাতীয় নেতা এবং হুতাক রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা। এই রাজবংশ ১৭০৯ থেকে ১৭৩৮ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত টিকে ছিল। অত্র অঞ্চলের সাফাভি গভর্নর গুরগিন খানের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ও তাকে হত্যা করাপর মীর ...

                                               

মুহাম্মদ আমির বিজলিগর

মাওলানা মুহাম্মদ আমির বিজলিগর একজন বিশিষ্ট ইসলামি পণ্ডিত এবং জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম -এর রাজনৈতিক নেতা ছিলেন। ১৯৬৯ সালে তিনি দলটির প্রাদেশিক পর্যায়ে নায়েব আমির নিযুক্ত হন। তিনি মুফতি মাহমুদের ঘনিষ্ঠ সহচর ছিলেন এবং জাতীয় রাজনীতিতে বিশেষত ১৯৭০ সাল ...

                                               

মুহাম্মদ ইয়াকুব খান

মুহাম্মদ ইয়াকুব খান ছিলেন আফগানিস্তানের আমির। ১৮৭৯ খ্রিষ্টাব্দের ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে ১২ অক্টোবর পর্যন্ত তিনি আমিরের পদে ছিলেন। তিনি তার পূর্ববর্তী শাসক শের আলি খানের পুত্র। মুহাম্মদ ইয়াকুব খান হেরাত প্রদেশের গভর্নর ছিলেন। ১৮৭০ খ্রিষ্টাব্দে তিনি ...

                                               

মুহাম্মদ দাউদ খান

মুহাম্মদ দাউদ খান ছিলেন আফগানিস্তানের প্রধানমন্ত্রী। তিনি ১৯৫৩ সাল থেকে ১৯৬৩ সাল পর্যন্ত দায়িত্বপালন করেছেন। ১৯৭৩ সালে তিনি বাদশাহ মুহাম্মদ জহির শাহকে উৎখাতের মাধ্যমে রাজতন্ত্র বিলুপ্ত করেন এবং আফগানিস্তানের রাষ্ট্রপতি হন। ১৯৭৮ সালে পিপলস ডেমোক্ ...

                                               

মুহাম্মদ নজিবউল্লাহ

মুহাম্মদ নজিবউল্লাহ আহমেদজাই ছিলেন আফগানিস্তানের রাষ্ট্রপতি। ১৯৮৭ সাল থেকে ১৯৯২ সাল পর্যন্ত তিনি রাষ্ট্রপতির পদে ছিলেন। তিনি সাধারণভাবে নজিবউল্লাহ বা ড. নজিব নামে পরিচিত। তিনি কাবুল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক হন। রাষ্ট্রপতি হওয়ার পূর্বে তিনি পিপ ...

                                               

মুহাম্মদ নাদির শাহ

মুহাম্মদ নাদির শাহ ছিলেন আফগানিস্তানের বাদশাহ। ১৯২৯ খ্রিষ্টাব্দের ১৫ অক্টোবর থেকে ১৯৩৩ খ্রিষ্টাব্দের নভেম্বর নিহত হওয়ার আগ পর্যন্ত তিনি শাসন করেছেন। এর পূর্বে তিনি যুদ্ধমন্ত্রী, ফ্রান্সে আফগানিস্তানের রাষ্ট্রদূত ও আফগানিস্তানের সামরিক বাহিনীর জে ...

                                               

মোল্লা ওমর

মোল্লা ওমর, পুরো নাম মোল্লা মোহাম্মদ ওমর। পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের বিশাল অঞ্চল তৎপরতা চালানো প্রধান তালেবানের আধ্যাত্মিক নেতা। ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত আফগানিস্তানে তালেবান সরকারের কার্যত প্রধান ছিলেন তিনি। তাকে বলা হতো সরকারের সর্বোচ্চ পরিষদে ...

                                               

যুবায়ের আলী যাঈ

যুবায়ের আলী যাঈ পশতুন উপজাতি থেকে এসেছিলেন, এটি নিজেই বৃহত্তর দুররানি কনফেডারেশনের একটি শাখা ছিল যাঁরা তাদের বংশদ্ভুতভাবে দুররানী সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা আহমদ শাহ দুরানির কাছে ফিরে এসেছিলেন। তিনি ১৯৫৭ সালে পাঞ্জাব এর এটক জেলার কাছাকাছি পীরদাদ গ্ ...

                                               

শুজা শাহ দুররানি

শুজা শাহ দুররানি দুররানি সাম্রাজ্যের শাসক। তিনি ১৮০৩ থেকে ১৮০৯ এবং ১৮৩৯ থেকে ১৮৪২ খ্রিষ্টাব্দে মৃত্যুর আগপর্যন্ত শাসন করেছেন। তিনি ছিলেন তিমুর শাহ দুররানির পুত্র।

                                               

শের আলি খান

শের আলি খান ছিলেন আফগানিস্তানের আমির। ১৮৬৩ থেকে ১৮৬৬ এবং ১৮৬৮ থেকে ১৮৭৯ খ্রিষ্টাব্দে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি আমিরের দায়িত্বপালন করেছেন। তিনি দোস্ত মুহাম্মদ খানের তৃতীয় পুত্র। পিতার মৃত্যুপর শের আলি খান ক্ষমতালাভ করেন। পরে তার বড় ভাই মুহাম্মদ আ ...

                                               

সামিউল হক

মাওলানা সামিউল হক ছিলেন একজন পাকিস্তানি আলেম এবং সিনেটর। তিনি পাকিস্তানে "তালিবানের পিতা" নামে প্রসিদ্ধ ছিলেন। তিনি ১৯৮৫ থেকে ১৯৯৭ এবং পুনরায় ২০০৩ থেকে ২০০৭ পর্যন্ত দুই দুইবার পাকিস্তান সিনেটের সদস্য ছিলেন।

                                               

হাইবাতুল্লাহ আখুনজাদা

মৌলভি হাইবাতুল্লাহ আখুনজাদা হলেন আফগানিস্তানের ইসলামিক মৌলবাদী রাজনৈতিক আন্দোলন তালিবানের প্রধান বা আমীর। আন্দোলনটি আফগানিস্তান ইসলামি আমিরাত নামেও পরিচিত। ২১শে জুন তালিবানের সাবেক প্রধান মোল্লা আখতার মানসুর মার্কিন চালকবিহীন ড্রোন বিমান হামলায় ...

                                               

হাজী আবদুল কাদির

হাজী আব্দুল কাদির আফগানিস্তানের একজন পশতুন নেতা ছিলেন। কাদির উত্তর জোটের বিশিষ্ট সদস্য ছিলেন এবং তালেবানদের বিরোধিতা করেছিলেন। তিনি পূর্ব আফগানিস্তান শুরার প্রধান এবং পরে আফগানিস্তানের সহ-রাষ্ট্রপতি এবং ১৯ জুন ২০০২ থেকে ১৯২২ সালের জুলাই তাঁর হত্য ...

                                               

হাবিবউল্লাহ খান

হাবিবউল্লাহ খান ছিলেন আফগানিস্তানের আমির। ১৯০১ থেকে ১৯১৯ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত তিনি আমির ছিলেন। তিনি উজবেকিস্তানের সমরকন্দে জন্মগ্রহণ করেছেন। তিনি ছিলেন তার পিতা আমির আমির আবদুর রহমান খানের জ্যেষ্ঠ পুত্র। হাবিবউল্লাহ খান আফগানিস্তানকে আধুনিক করতে চ ...

                                               

হাশিম খান

হাশিম খান পাকিস্তানের স্কোয়াশ খেলোয়াড় ছিলেন। তিনি ১৯৫১ থেকে ১৯৫৬ সাল পর্যন্ত মোট সাতবার ব্রিটিশ ওপেন স্কোয়াশ চ্যাম্পিয়নশিপ জিতেছিলেন এবং তারপরে ১৯৫৮ সালে আবারও পুরস্কার জিতেছিলেন। খান খান স্কোয়াশ পরিবারের পূর্বপুরুষ ছিলেন, যিনি ১৯৫০-এর দশক ...

                                               

হুসাইন হুতাক

শাহ হুসাইন হুতাক, ছিলেন হুতাক রাজবংশের পঞ্চম ও শেষ শাসক। তিনি প্রথম হুতাক শাসক মীরওয়াইস হুতাকের পুত্র। জাতিগতভাবে তিনি গিলজি গোত্রের একজন পশতুন ছিলেন। তার ভাই মাহমুদ হুতাক ১৭২৫ খ্রিষ্টাব্দে মারা যাওয়াপর তিনি শাসনভার লাভ করেন। তিনি পশতু ভাষার এক ...

                                               

ওয়াইস শাহ

ওয়াইস আলম শাহ হলেন একজন ইংল্যান্ড জাতীয় দলের ক্রিকেটার। একজন মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান হিসেবে ১৯৯৬-২০১০ পর্যন্ত তিনি মিডলসেক্স কাউনটি ক্রিকেট ক্লাবের হয়ে খেলেছেন। তিনি ইংল্যান্ডের সকল প্রকার খেলার ফর্মেটে প্রতিনিধিত্ব করেছেন। ২০০১ সাল থেকে ২০০৯ ...

                                               

আখতার হামিদ খান

আখতার হামিদ খান একজন পাকিস্তানি সমাজ বিজ্ঞানী ও উন্নয়ন কর্মী ছিলেন। তিনি পাকিস্তান এবং অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশে অংশগ্রহণমূলক পল্লী উন্নয়ন ব্যবস্থা উন্নীত করেন। তার বিশেষ অবদান ছিল পল্লী উন্নয়নের জন্য একটি ব্যাপক প্রকল্প, কুমিল্লা মডেল প্রতিষ্ঠ ...

                                               

মঈন আখতার

মঈন আখতার ছিলেন পাকিস্তানি টেলিভিশন, চলচ্চিত্র ও মঞ্চ শিল্পী, কৌতুকবিদ, কৌতুকাভিনেতা, ছদ্মবেশী, আয়োজক, লেখক, গায়ক, পরিচালক এবং প্রযোজক; যিনি তার সহ-অভিনেতা আনোয়ার মকসুদ এবং বুশরা আনসারির সাথে রেডিও পাকিস্তানের যুগে খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। পর্দা ...

                                               

আবদুল সাত্তার ইধি

আবদুস সাত্তার ইধি ছিলেন পাকিস্তানের একজন জনহিতৈষী, সমাজসেবী ও মানবতাবাদি। তিনি ইধি ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান ছিলেন। ছয় দশকব্যপী তিনি এই প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করেছেন। তাকে দয়ার ফেরেশতা নামে ডাকা হত এবং পাকিস্তানের সবচেয়ে সম্মানিত ও কিংবদন্ ...

                                               

আলভিন রবার্ট কর্নেলিয়াস

আলভিন ববি রবার্ট কর্নেলিয়াস, এইচপিকে পাকিস্তানের চতুর্থ প্রধান বিচারপতি ও বিশিষ্ট আইনজ্ঞ ছিলেন। ১৯৬০ থেকে ১৯৬৮ পর্যন্ত পাকিস্তান সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। কর্নেলিয়াস ব্রিটিশ ভারতের উত্তর প্রদেশের আগ্রা শহরের এক ...

                                               

ওয়াজির আলী

মেজর সৈয়দ ওয়াজির আলী তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের পাঞ্জাব প্রদেশের জলন্ধর এলাকায় জন্মগ্রহণকারী ভারতীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। ভারত ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৩২ থেকে ১৯৩৬ সময়কালে ভারতের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন। ...

                                               

নাজির আলী

সৈয়দ নাজির আলী তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের পাঞ্জাবের জলন্ধর এলাকায় জন্মগ্রহণকারী ভারতীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। ভারত ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৩২ থেকে ১৯৩৪ সময়কালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ভারতের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহ ...

                                               

নিয়াজ আহমেদ

নিয়াজ আহমেদ সিদ্দিকী তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের বারাণসী এলাকায় জন্মগ্রহণকারী পাকিস্তানি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। পাকিস্তান ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৬০-এর দশকের শেষার্ধ্বে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে পাকিস্তানের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিক ...

                                               

ইবরাহিম ইসমাইল চুন্দ্রিগড়

বোম্বে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্জন করাপর তিনি আহমেদাবাদে আইনজীবী হিসেবে কাজ শুরু করেন। ১৯১৪ সালে তিনি আহমেদাবাদ পৌরসভার সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৩৭ সালে তিনি বোম্বে আইন পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। একই বছর তিনি বোম্বে হাইকোর্টে আইনজীবী হিসেবে যোগ দেন। ...

                                               

কে. সি. ইব্রাহিম

খানমোহাম্মদ কাসামভয় ইব্রাহিম তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের মহারাষ্ট্রের বোম্বে এলাকায় জন্মগ্রহণকারী ভারতীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। ভারত ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৪৮ থেকে ১৯৪৯ সময়কালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ভারতের পক্ষে আন্তর্জাতিক ...

                                               

মোহাম্মদ গাজালী

মোহাম্মদ ইব্রাহিম জয়েনউদ্দীন ইব্বু গাজালী তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের মুম্বই এলাকায় জন্মগ্রহণকারী পাকিস্তানি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। পাকিস্তান ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৫০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়কালে অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ...